Uncategorized

মহালয়ার শিশিরভেজা ভোরে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কণ্ঠে চণ্ডীপাঠ

বীরেন ভদ্রের জাদুকন্ঠে মহামায়ার উদ্দেশে নিবেদিত চন্ডীপাঠ এবং সমধুর গীত মালিকার অনন্য এবং অতুলনীয় সম্ভার যে কোনও শ্রোতার মনকেই না চাইতেও অমর্ত্যলোকের স্বাদ এনে দেয়। বীরেন ভদ্রের কন্ঠের মহিমা এবং অপার আবেদনে মোহাবিষ্ট গোটা একটা জাতি।আকাশবাণীতে বহু স্মরনীয় কাজ করেছেন বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র। নাটক, ফুটবলের ধারাবিবরনী এমনকী তৎকালীন বেতারের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের সঞ্চালনাতেও তাঁর অনায়াস দক্ষতা ও কুশলতা শ্রোতাদের মাতিয়ে দিত।

Download বীরেন ভদ্রের জাদুকন্ঠে চণ্ডীপাঠ Click Link Below:

download

 

১৯০৫ সালের ৪ অগস্ট উত্তর কলকাতায় মাতুলালয়ে বীরেন্দ্রকৃষ্ণের জন্ম হয়। তাঁর পিতা ছিলেন রায়বাহাদুর কালীকৃষ্ণ ভদ্র ও মা ছিলেন সরলাবালা দেবী। বাবা রায় বাহাদুর কালীকৃষ্ণ ভদ্র নিজেও ছিলেন সংস্কৃতিমনস্ক মানুষ। পুত্র বীরেন্দ্রর মধ্যে সৃষ্টিশীলতার বীজ রোপিত হয়েছিল হয়ত পিতৃদেবের কাছ থেকেই।পুত্র বীরেন্দ্র ছিলেন একজন বিশিষ্ট ভারতীয় বাঙালি বেতার সম্প্রচারক, নাট্যকার, অভিনেতা ও নাট্য পরিচালক। তিনি কলকাতার বাসিন্দা ছিলেন। পঙ্কজকুমার মল্লিক ও কাজী নজরুল ইসলামের সমসাময়িক।

প্রথমে হত মহালয়ের ভোরে স্টুডিওয় বসে ‘‌লাইভ’‌। পরে আকাশাবাণী রেকর্ড করে রেখে তা বাজাতে শুরু করে। আরও পরে ‘‌হিজ মাস্টার্স ভয়েজ’‌ এবং ক্যাসেট আসে আরও পরে। বীরেন্দ্রকৃষ্ণের সর্বাধিক পরিচিতি তাঁর মহিষাসুরমর্দিনী নামক বেতার সঙ্গীতালেখ্যটির জন্য।১৯৩০-এর দশকে তিনি যোগ দেন অল ইন্ডিয়া রেডিওয়।এই সময় থেকেই দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেবী দুর্গার পৌরাণিক কাহিনি অবলম্বনে দুই ঘণ্টার সঙ্গীতালেখ্য মহিষাসুরমর্দিনী অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হন তিনি।

 

Birendra krishna vadra

বীরেন্দ্রকৃষ্ণের সর্বাধিক পরিচিতি তাঁর মহিষাসুরমর্দিনী নামক বেতার সঙ্গীতালেখ্যটির জন্য। ১৯৩১ সাল থেকে অদ্যাবধি মহালয়ার দিন ভোর চারটের সময় কলকাতার আকাশবাণী থেকে এই অনুষ্ঠানটি সম্প্রচারিত হয়। বীরেন্দ্রকৃষ্ণ এই অনুষ্ঠানের ভাষ্য ও শ্লোকপাঠ করেছেন।। আজও দুর্গাপূজা শুরু হয় এই অনুষ্ঠানটির মাধ্যমে।

আজও দুর্গাপূজার সূচনায় মহালয়ার দিন বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের মহিষাসুরমর্দিনী অনুষ্ঠানটির রেকর্ড আকাশবাণী, কলকাতা থেকে সম্প্রচারিত হয়। এই অনুষ্ঠানটি এতটাই জনপ্রিয় যে, ১৯৭৬ সালে আকাশবাণী কর্তৃপক্ষ বীরেন্দ্রকৃষ্ণের পরিবর্তে জনপ্রিয় অভিনেতা উত্তম কুমারকে দিয়ে অন্য একটি অনুষ্ঠান সম্প্রচার করলে, তা জনমানসে বিরূপ প্রভাব সৃষ্টি করে। আকাশবাণী কর্তৃপক্ষকে সেই অনুষ্ঠানের পরিবর্তে মূল মহিষাসুরমর্দিনী অনুষ্ঠানটিই সম্প্রচারিত করতে হয়। source

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *