Uncategorized

জুলফিকর ও ব্যোমকেশের লড়াইয়ে এগিয়ে যিশু

পুজোয় এবার থিম নয়, ছ’-ছয়টা ছবি ছবির লড়াই আসলে ঠান্ডা যুদ্ধটা নাকি ‘ব্যোমকেশ’ ও ‘জুলফিকর’-এর মধ্যে৷ যদিও দৌড়ে আছে মেনস্ট্রিম ছবি ‘অভিমান’ এবং ‘গ্যাংস্টার’৷সৃজিত হতাশ করেছেন৷ শেক্সপিয়রকে অন্ধকার জগতে টেনে নিয়ে গিয়ে গল্পের বাঁধুনি ধরে রাখতে পারেননি৷ পুজোর মরশুমে এই ছবি পাবলিক না-ও খেতে পারে–এমন আশঙ্কা গুনগুন করছে চারিদিকে৷

অঞ্জন দত্ত’র ‘ব্যোমকেশ ও চিড়িয়াখানা’ও সাহিত্যনির্ভর ছবি৷ যদিও একটা নাটক ও অন্যটা উপন্যাস৷ দু’টোর ফরম্যাট আলাদা৷ অঞ্জন দত্ত স্ট্রেট ব্যাটে খেলেছেন৷ আর বাঙালির কাছে ব্যোমকেশ-এর বিনোদন ভ্যালু নেহাত কম নয়৷ ‘চিড়িয়াখানা’ গল্পটার টান আর বাঙালি সত্যসন্ধানীর প্রতি আকর্ষণ পুজোর মরশুমে একটু বেশি এমনটাই মনে করা হচেছ৷ তাই ‘জুলফিকর’-এর চেয়ে ‘ব্যোমকেশ ও চিড়িয়াখানা’ কাটবে বেশি কিন্তু আসল কথাটা অন্য৷ সৃজিতও নয়, অঞ্জন দত্তও নয়, আলোটা বোধহয় কেড়ে নিলেন যিশু সেনগুপ্ত৷

Source

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *